দ্বিতীয় অধ্যায় – পর্ব – ১

পূর্বসূত্র: ‘বছর তিরিশের এক শিক্ষিতা,সুন্দরী বিবাহিতা নারী গোপা বন্দ্যোপাধ্যায় স্বামী-সন্তান সহ সংসার করতে করতে হঠাৎই প্রতিবেশী তরুণ সুজয়ের সাথে এক মানসিক ও নিষিদ্ধ শারীরিক সর্ম্পকে জড়িয়ে পড়ে। তার সেই যৌন সুখের জোয়ারে ভেসে চলার এক ধারাবাহিক যৌনকাহিনীর দ্বিতীয় অধ্যায়…

পিঞ্জর: ‘প্রথম অধ্যায়ে’ যা ঘটেছিল:
বছর তিরিশের এক শিক্ষিতা, সুন্দরী বিবাহিতা নারী গোপা বন্দ্যোপাধ্যায় স্বামী-সন্তান সহ সংসার করতে করতে স্বামীর যৌন অনীহার ফলে হঠাৎই প্রতিবেশী তরুণ সুজয়ের সাথে নিজের সিদ্ধান্তে এক মানসিক ও নিষিদ্ধ শারীরিক সর্ম্পকে জড়িয়ে পড়ে। তার সেই যৌন সুখের জোয়ারে ভেসে চলার এক বাস্তব ভিত্তিক ধারাবাহিক যৌনকাহিনী।

চরিত্র লিপি:
১) গোপা বন্দ্যোপাধ্যায় (৩০) সোদপুর-হরিপুর-আমোদপুর
২) মিহির বন্দ্যোপাধ্যায় (৪০) IT Officer, হরিপুর-আমোদপুর-উত্তরবঙ্গ
৩) তীর্থ বন্দ্যোপাধ্যায় (৬) Standard 2, আমোদপুর
৪) নন্দা রায় (৩৫) মিহিরের মাসতুতো বিধবা বোন, হরিপুর
৫) অমৃতা ভট্টাচার্য (৫২) অজন্তা/গোপার মা, সোদপুর
৬) বিনয় ভট্টাচার্য (৬০) অজন্তা/গোপার বাবা, সরকারি চাকুরে
৭) কাজল ভট্টাচার্য (৩৮) অজন্তা/গোপার বড়দা, নন্দিতা ভট্টাচার্য (দাশ) (৩৪) বৌমণি, রনিত ভট্টাচার্য (১৩+) ভাইপো, সোদপুর-বেঙ্গালুরু
৮) পুলীন ভট্টাচার্য (৩৬) অজন্তা/গোপার ছোটদা, শ্রুতি ভট্টাচার্য (রায়) (৩২) বৌমণি, জিত (১০) ভাইপো, বুল্টি (১২) ভাইঝি, সোদপুর
৯) ঝর্ণা (৪৫) কাজের মেয়ে
১০) যতীন্দ্রমোহন শীল (৩৪) গোপার বডির্গাড
১১) রুমা শীল (৩০) যতীনের বউ

*** দ্বিতীয় অধ্যায় – পর্ব – ১ ***

“নিজস্ব সংবাদদাতা:কলকাতা:৩/২/১৮, শনিবার- মহিলাদের ব্ল্যাকমেল করে যৌনকর্মে বাধ্য করবার অভিযোগে গ্রেফতার ‘পার্ক ভিউ হোটেলের’ ম্যানেজার এবং তার সঙ্গীনি নীলিমা পাইক৷”

কফির কাপ হাতে ড্রয়িংরুমে বসে সকালের খবরের কাগজের হেডলাইন নিউজটা পড়ে চমকে ওঠে গোপা। শর্মিলাদি ও সুনীলদা তাহলে তার কথা রেখেছেন। বাকি খবর পড়ার আগেই ওর চোখ ঝাপসা হয়ে আসতে থাকে। হুম..ডহু.. করে ফুঁপিয়ে কেঁদে ওঠে গোপা। দীর্ঘ তেরোটা মাস ওর জীবনের উপর যে কালো অন্ধকার হয়ে ছিল তার থেকে সে মুক্তি পেতে চলেছে।
গোপা পুরো খবরটা পড়ে একটা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলে ভাবে শর্মিলাদিকে ফোন করবে কিনা? এমন সময়ই সেন্টার টেবিলের উপর রাখা তার ফোনটা বেজে উঠলো। একটু চমকে উঠে গোপা। তারপর screen-এ শর্মিলাদির ছবিটা দেখে রিসিভ করে কলটা।
ওপার থেকে শর্মিলাদি বলে ওঠে- কি রে , গোপা? আজকের নিউজটা দেখলি?
গোপা ফুঁপিয়ে কেঁদে উঠে বলে- হ্যাঁ, দিদি দেখলাম।
ধণ্যবাদ গো..আবার‌ও ফু‍ঁপিয়ে কেঁদে ওঠে গোপা..।
শর্মিলা ওকে থামিয়ে বলে- আরে ধুস, ধন্যবাদ কি? তুই কি আমাদের পর নাকি? আর এতো কান্নাকাটির দরকার নেই রে..। এখন তুই মুক্তি পেলি ওই নোংরা চক্রের হাত থেকে। আরে আমাদের শরীর আমাদের সম্পদ। সেটা কাকে ব্যবহার করতে দেব আর কাকে নয় সেটাতো আমরাই ঠিক করবো। কেন কেউ জোর খাটাবে আমাদের উপর। তুই আর এই ব্যাপারে চিন্তা করিস না। খুশি থাক। এখন তাহলে রাখছি রে..।পরে আবার ফোন করবো।
গোপা চোখ মুছতে মুছতে বলে- সে তো ঠিকই বলেছো দিদি। আছে দিদি আমিও ফোন করবো। তুমিও ভালো থেকো।
শর্মিলাও হেসে বলে-হ্যাঁ’রে তুইও খুব ভালো আর খুশি থাকিস বোন। ফোনটা কেটে যায়।
আজ সে বাড়িতে একাই আছে। তীর্থকে নিয়ে যতীন দেবীপুরে ওর দাদু-ঠাকুমার বাড়িতে গিয়েছ। আগে যেমন মিহির নিয়ে যেত। এখন তেমন নিয়মিত না হলেও ছেলেকে তার দাদু-ঠাকুমার সঙ্গ পেতে গোপা মাঝেমধ্যে ওকে পাঠায় সেখানে।
গোপা ঘড়িতে দেখে সকাল ৯টা বাজে। একটা খুশির আমেজে গোপা ভাবে স্নান করে আবার একটা হরিপুর শ্বশুর বাড়ি গেলে কেমন হয়। অনেকদিন যাওয়া হয়না।
গোপা বাথরুমে গিয়ে ঘন্টাখানেক ধরে ভালো করে সাবান-শ্যাম্পু দিয়ে স্নান করতে থাকে। গা ঘঁষার ব্রাশ দিয়ে যেন ঘঁষে ঘঁষে তার শরীর থেকে এতোদিনের ক্লেশ-ক্লেদ ধুয়ে ফেলতে চায়।
স্নান সেরে একটা হালকা নাইটি পড়ে কিচেন গিয়ে কফি ও নুডুলস তৈরি করে। তারপর খবরের কাগজটা নিয়ে বেডরুমে এসে খাটে শুয়ে আবারও পড়তে পড়তে …. ওর মনের মধ্যে সেই সব দিনগুলো ভেসে উঠতে লাগল।

* * *

দিনটা ছিল জানুয়ারি ১৭’র এক শনিবার গোপা তীর্থ ও যতীনকে নিয়ে ‘পার্ক ভিউ হোটেলে’ পৌঁছে রিসেপশন গিয়ে ম্যানেজার রন্টু পাইকের সাথে দেখা করতে চায়।
রিসেপশনিস্ট বয়স্ক ভদ্রলোকটি গোপাকে অভ্যার্থনা করে বলে -আপনি ম্যাডাম একটু অপেক্ষা করুন। আমি স্যারকে খবর দিচ্ছি।
গোপা হোটেলের সুসজ্জিত রিসেপশনে রাখা সোফায় বসে ভাবে রিসেপশনিস্ট তো তার নাম জানতে চাইলেন না। গোপাও আর কিছু না ভেবে চুপচাপ অপেক্ষা করতে করতে ওর আগামী ভবিষ্যতে নিয়ে ভাবতে থাকে।
তীর্থ যতীনের সাথে বসে কিসব আবোলতাবোল কথা ক‌ইতে থাকে।
খানিক পরে দেখে হোটেলের ম্যানেজার রন্টু পাইক তার দিকে আসছেন।
রন্টু পাইক কাছে এসে বলেন – সুপ্রভাত, ম্যাডাম। আপনি যে আমাদের হোটেলে এসেছেন। এতে আমাদের হোটেলে সন্মানিত হলো। তারপর আসুন বলে -গোপাকে নিয়ে ওনার চেম্বার বুকে একটা চেয়ার দেখিয়ে বসতে বলে।
গোপা চেয়ারে বসতে রন্টু পাইক বলে – ম্যাডাম, আপনি অসাধারণ রুপসী। তাই আমরা চাইছি আপনি আমাদের হোটেলে জয়েন করুন।
গোপা বলে – আমার চাকরি করা পছন্দ নয় আপনাকেতো ফোনেও বলেছি। আজ আপনাকে সেই কথাটাই মুখোমুখি বলতে এলাম।
রন্টু পাইক বলে -আরে আপনার মতো এমন শিক্ষিতা, সুন্দরী মহিলা খালি ঘরে বসে থাকবেন কেন? তাহলে এতো লেখাপড়া শেখার দাম কি?
এই শুনে গোপার বরের কথা মনে পড়ে। মিহির‌ও তাকে এক‌ই কথা বলে। ও তখন বলে- সে ঠিক আছে। কিন্তু আমার চাকরির বিষয়ে কোনো অভিজ্ঞতাও নেই। আর হোটেলে কি জব তার‌ও ধারণা নেই। আমি পেরে উঠবো না মি.পাইক।
রন্টু পাইক তখন হেসে বলে – আরে এমন কিছু হাতিঘোড়া কাজ নয়। একজন গৃহবধূ হিসেবে রোজকার যেমন স্বামীসেবা করেন। এটাও ঠিক তেমনই একটা জব ‘রিক্রয়েশন ও রিফ্রেশমেন্ট ম্যানেজার’। ম্যাডাম আপনাকে সপ্তাহে শুক্রবার থেকে সোমবার সকাল পর্যন্ত ডিউটি করতে৷ এই সময়টা আপনাকে হোটেলের নামী-দামী গেস্টদের সাথে সময় কাটাতে হবে৷ তাদের সবরকম আনন্দ-সুখের চাহিদা পূরণ করাই ‘রিক্রিয়েশন ও রিফ্রেশমেন্ট’ ম্যানেজারের জব৷ স্যালারি মাসিক ২৫,০০০/- , পিক-ড্রপের জন্য গাড়ি, আপনার যাবতীয় মেনটেনেন্সর খরচা হোটেলের৷ এছাড়া গেস্টদের থেকে পাওয়া টিপস আপনার প্রাপ্য হবে৷ একবছরের মৌখিক চুক্তি থাকবে আপনার সঙ্গে হোটেলের৷
রন্টু পাইকের বক্তব্য শুনে গোপা অবাক বিস্ময়ে বলে..এইসব আপনি কি বলছেন মি.পাইক? ..এতো দেহপসারীণী কাজ৷ আমি একজন সন্মানিত গৃহবধু৷ প্রচন্ড রাগে ফুঁসতে ফুঁসতে চেয়ার থেকে উঠে পড়তে পড়তে বলে-গোপা৷

রন্টু পাইক..এতোক্ষন হাসি মুখে কথা বলছিলেন। কিন্তু গোপাকে চেয়ার ছাড়তে দেখে পাইক গলাটা একটু কঠিন একটা ফটো অ্যালবাম ওর দিকে বাড়িয়ে দিয়ে বলে.. মিসেস গোপা আপনি এটা দেখে আপনার সিদ্ধান্ত জানান৷
গোপা অ্যালবামটা খুলে চমকে ওঠে৷ অ্যালবামটার শুরুতেই তার বিভিন্ন পোজের বিবস্ত্র একটা কোলাজ রয়েছে। যার কয়েকটি রন্টু পাইক গতসপ্তাহে তার ফোনে পাঠিয়ে আজ তাকে এখানে আসতে বাধ্য করেছে। গোপার সারা শরীর হিম হয়ে কাঁপতে শুরু করে। অ্যালবামটায় আর কি কি আছে দেখার জন্য ও নিজের অজান্তেই পাতা উল্টাতে থাকে। আর দেখে কোনটায় গোপা আয়নায় তার স্তনজোড়া দুহাতে উঁচু করে ধরা, কোনটায় পাশ ফেরা, কোনটায় মাথার পিছনে দু হাত দিয়ে উন্মুক স্তনে শাওয়ারের জলধারা বইয়ে দিচ্ছে..এইরকম মুখে , গায়ে, বগলে সাবানের ফেনা ও গা ঘষার ছবি৷
গোপা এইসব দেখে এক অসহায় লজ্জায়, রাগে বলে..এইগুলো কি, কেন? মি.পাইক? কোথায় পেলেন এই সব ছবি?
রন্টু গোপার চেয়ারের কাছে এসে ওর দুই কাঁধে হাত রেখে বলে..গোপাদেবী, আপনি এতো সুন্দরী, এতো দুরন্ত ফিগার এইগুলো কি সংসারের ঘানি টেনে বরবাদ করবেন৷ তার থেকে বেটার, জবটা নিন৷ ইনকাম ও এনজয় করুন৷ খালি হোমমেকার হয়েই থাকবেন কেন? আর এইসব ছবি যেবার আপনি আমাদের হোটেলে একরাত থাকতে এসেছিলেন তখনই তোলা।
গোপা এবার কেঁদে ফেলে বলে..মি.পাইক আমার, স্বামী, সন্তান, সংসার আছে..আমার মান-সন্মান সব ধুলোয় মিশিয়ে যাবে..প্লিজ আমাকে ছেড়ে দিন৷ আপনি চাইলে আমি একবার আপনার সাথে মিলিত হতে রাজি..প্লিজ, প্লিজ..বলে আবারো দু হাতে মুখ ঢেকে কেঁদে ফেলে গোপা৷
রন্টু পাইক বলে..দেখুন আমাকে আপনার কিছু দিতে হবে না৷ আপনি যদি আমার কথামতো জবটা করেন আমি খুব চেষ্টা করবো যাতে আপনাকে ভদ্র-মার্জিত ও পয়সাওয়ালা ক্লায়েন্ট দেওয়া যায়৷ আর না হলে এই ছবি ও ভিডিও আছে সেগুলো ইন্টারনেটে বেরিয়ে গেলে কি হবে ভাবুন৷ আমরা আপনার মোটামুটি খবর নিয়েছি। আপনার স্বামী IT Officer শিলিগুড়িতে ট্রান্সফার হয়েছেন। আপনি ছেলে ও একজন কাজের লোক নিয়ে একা আমোদপুরের ‘বনশ্রী আবাসনের ১০ডি ফ্ল্যাটে থাকেন। সুজয় নামক একটি তরুণ ছেলের সাথে আপনাকে বিভিন্ন জায়গায় দেখা যেত। এছাড়া আপনি একদম পিওর হাউস মেকার। আর আপনাদের এখন খুব ডিমান্ড।

এইসব কথা শুনে গোপার কান্না থেমে একটা ভয় জাগে সত্যিই যদি ছবি ও ভিডিও আছে সেগুলো ইন্টারনেটে ছড়িয়ে যায় তাহলেতো আত্মহত্যা করা ছাড়া উপায় হবে না কিছু ওর৷ গোপা ফুঁপিয়ে বলে..আমি রাজি হলে..সব ছবি আর ভিডিও কি ফেরত দেবেন আর এই সব কি সম্পূর্ণ গোপনীয় থাকবে?
রন্টু বলে..ছবি, ভিডিও আপাতত আমার কাছেই থাকবে৷ আপনার আচরণ যদি আমাদের পক্ষে ক্ষতিকারক না হয় তবে ফেরতের কথা ভাববো৷ আর আপনার জবের ব্যাপারটা গোপনীয়ই থাকবে৷
গোপা বলে..দেখুন আমার এইসবতো অভ্যাস নেই তাই আপনার সাহায্য চাই..।
রন্টু হেসে বলে..মিসেস গোপা..আপনাকে আমার ভালো লেগেছে বলে আমি প্রাথমিক অবস্থায় আপনাকে সপ্তাহে একজন ক্লায়েন্ট দেব৷ মানে মাসে চারটি৷ আর আপনার Job Name টা হবে অপলা দাশগুপ্ত৷ এই নামেই ক্লায়েন্টদের পরিচয় দেবেন৷ ব্যাক্তিগত ফোন নম্বর, ঠিকানা এইসব শেয়ার করবেন না৷
গোপা নিরুপায় হয়ে নিঃশ্চুপে ঘাড় নাড়ে৷
রন্টু তখন ফোনে কাকে ডাকতে একজন বুড়োলোক ঘরে ঢুকলে রন্টু বলে..ওস্তাদ ম্যাডামের পোশাকের মাপজোখ গুলো নিয়ে নাও ঝটপট ..ওস্তাদ ফিতে হাতে এসে গোপাকে দাঁড় করিয়ে ওর বুক, কোমড়, পাছা, উরূ এইসবের মাপ নিয়ে চলে যায়৷
রন্টু বলে..আপনার জন্য পোশাক কিছু কেনা ও বানানো হবে তাই ওস্তাগরকে মাপ নিতে বললাম৷ তাহলে আগামী ২৩/১/১৭ তারিখ থেকেই জয়েন করুন৷
গোপা মৃদু স্বরে বলে..ঠিক আছে৷ তবে আপনাকে বিশ্বাস করে একটা অনুরোধ করছি..আমার মান- সন্মানের কথাটা মনে রাখবেন৷
রন্টু পাইক হেসে বলে..অবশ্যই কেবল মান-সন্মান শুধু নয় আপানার মানসিক ও শারীরিক সুস্থতা সবটাই দেখতে হবে। গোপাদেবী বা অপলাদেবী৷ তাছাড়াও আপনার এই জবের সাথে আপনার ও হোটেলের সন্মান ও অথনৈতিক প্রাপ্তির ব্যাপারটাও জড়িত আছে৷ রন্টু পাইক এরপর গোপার জন্য একটা ‘রিক্রয়েশন ও রিফ্রেশমেন্ট’ ম্যানেজার ‘ পোস্টের জন্য ডেস্ক থেকে ফর্ম বের করে। তারপর বলে- এখন আমাদের গাড়ি আপনাকে যেখানে যেতে চাইবেন ছেড়ে আসবে। আগামী ২২তারিখ আপনাকে ফোন করে গাড়ি আপনাকে কোথা থেকে পিক করবে সেটা জেনে নেবো।
ইতিমধ্যে বেয়ারা কফি, বিস্কিট দিয়ে রায়।
রন্টু পাইকের অনুরোধে গোপা খালি কফি নেয়।
রন্টু পাইক ফর্মটা গোপার দিকে এগিয়ে দিয়ে বলে- এই , এই জায়গায় সাইন করুন। বাকি আমি ফিলাপ করে দেব।
গোপা পিঞ্জরাবদ্ধ কবুতরীরমতো রন্টু পাইকের কথায় মাথা নামিয়ে সাইন করে দেয়।
এরপর রন্টু পাইক গোপার ছেলে তীর্থর জন্য চকলেট, কেক, প্যাটিস, বেলুন এইসব দিলে তীর্থ খুশিতে নেচে ওঠে।
হোটেলের গাড়ি গোপার র্নিদেশে ওদের সোদপুর স্টেশন অবধি পৌঁছে দেয়। গাড়ি ছেড়ে গোপা অটোতে করে বাপের বাড়িতে পৌঁছায়৷

গোপাকে দেখে ওর ছোট বউদি শ্রুতি খুশিতে কলকল করে শ্বাশুড়ি, বর আর বাচ্চাদের ডাকতে থাকে৷ সকলে এসে গোপাকে দেখে আনন্দিত হয়৷ গোপার মা অমৃতাদেবী নাতি তীর্থকে জড়িয়ে ধরে আদর করেন৷
যতীনকে দেখে সকলে একটু অবাক হলে..গোপা বলে..মিহিরের বদলির পর আর রুমার কাজ ছাড়া পর ওনাকে রাখা হয়েছ..উনি যতীন শীল, আমোদপুরেরই বাসিন্দা৷
সেই রাতটা হইচইয়ের মধ্যেই কাটে৷ রাতে গোপা ওর মাকে বলে..আমি একটা চাকরি করবো ভাবছি৷ পয়সাকড়ির জন্য নয়৷ একটু সময় কাটাবার জন্য৷
গোপার মা বলেন..তীর্থর পড়াশোনার ক্ষতি হবেনা তো৷
গোপা বলে..কাজটা সপ্তাহে চারদিন৷ ওই শুক্রবার থেকে রবিবার৷ সোমবার সকাল থেকে বৃহস্পতিবার ছুটি..৷
গোপার মা অপলা বলেন..বেশ করো..তবে মিহিরকে জানিয়েছিস কি?
গোপা বলে..আজইতো সব ঠিক হোলো? রাতে ফোন করবো ওকে..।
গোপার বাবা বিনয় ভট্টাচার্য বলেন..হ্যাঁ, মিহিরকে একবার জানিয়ে রাখা উচিত৷
তীর্থ তার দুই মামাতো দাদা জিত (বয়স ১২), ও দিদি বুল্টি (বয়স১৫) খেলায় ব্যস্ত৷ গোপা ছোটবৌদি শ্রুতি’র সাথে রান্নাঘরে হাতে হাত কাজ করতে যায়৷
শ্রুতি গোপাকে জিজ্ঞেস করে এই যতীনকে জোটালি কি করে? কতো মাইনে দিতে হয়। রান্নাবাড়ি সব পারে?
গোপা হেসে বলে- যতীনকে আমার ঠিকে কাজের মেয়েটাই দিয়ে গেছে। হ্যাঁ, কাজে কর্মে এক্সপার্ট। মাইনে ৩,০০০/- টাকা, প্লাস থাকা-খাওয়া।
ভালোই হয়েছে। মিহিরদা নেই। বাজার-ঘাট, অন্যান্য কাজে একটা পুরুষ লোক দরকার। তাই থাকে কোথায়?
গোপা ছোটবৌদির কৌতুহলে একটু সাবধানী হয়ে বলে- আমাদের ফ্ল্যাটে একটা স্টোররুম অব্যবহৃত হয়ে ছিল। যতীনদা ওটা নিজেই গুছিয়ে নিয়ে ওখানে শোয়।
শ্রুতি বলে- ভালোই গো। নাও তুমি এবার যাও। ভিনার টেবিল সকলকে ডাকো গিয়ে।
গোপা সবাই কে ডেকে ভিনাররে আসতে বলে। ওর রুমে বসে মিহিরকে জবের খবরটা দেয়৷ কিন্তু জবটাতে ওকে কি করতে হবে সেটা সযত্নে এড়িয়ে যায়৷
মিহির খুশি হয়ে বলে..বাহ্, আমিতো তোমাকে আগেই বলেছিলাম লেখাপড়া শিখেছো যখন একটা কিছু করো৷ অবশেষে তুমি যে জব করতে চাইছো এটা ভালো। আমি তোমার জবের খবরে ভীষণই খুশি৷ আর আমি জানি তুমি তীর্থকে সামলে জবটা ভালোই করতে পারবে৷ মিহির ফোন কেটে দেয়৷
মিহিরের সাথে কথা বলে গোপা ফোনটা রেখে একটু ম্লাণ হেসে ভাবে যদি জানতে কোন ‘পিঞ্জর’-এ বাঁধা পড়তে চলেছি৷
রাতের খাওয়া-দাওয়ার পর বাবা-মা-ছোটদা-বৌদির সাথে কিছুক্ষণ আড্ডা দিয়ে গোপা ছেলেকে নিয়ে দোতালায় শুতে যায়৷ যতীনের জায়গা হয় একতলায় গেস্টরুমে৷
১৮/১/১৭, রবিবার লাঞ্চের পর একটা গাড়ি বুক করে গোপা সন্ধ্যা নাগাদ আমোদপুর ফিরে আসে৷

* * *

যথারীতি ২৩/১/১৭ র্নির্দিষ্ট দিনে গোপা তীর্থকে যতীনের কাছে রেখে টোটো করে হাইওয়ের কাছে এসে নামল। সেখানে রন্টু পাইকের পাঠানো গাড়ি অপেক্ষা করছিল। গোপা গাড়িতে উঠে বসতেই গাড়ি ওকে নিয়ে ‘পার্ক ভিউ হোটেলে’ র‌ওনা হয়।’

**চলবে…

পাঠক/পাঠিকাদের কাছে অনুরোধ আপনাদের কোনো জিজ্ঞাস্য থাকলে royratnath(at)gmail(dot)com-এ যোগাযোগ করতে পারেন।

error: দুঃখিত! এই সাইটের লেখা আপাততঃ কোনো গবেষণা কাজে ব্যবহার করার জন্য উন্মুক্ত নয়।